খবর ও সর্বশেষ সংবাদের জন্য চোখ রাখুন জনতার আওয়াজের পর্দায়

বিদ্যুৎ খাতের ব্যয় নিয়ে মোশাররফের প্রশ্ন

সারাদেশে ব্যাপক লোডশেডিংয়ে পরিপ্রেক্ষিতে বিদ্যুখাতে ব্যয় নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

২৪ ঘণ্টায় কতবার লোডশেডিং হয় সাংবাদিকদের প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, ‘আপনাদের ভালো জানার কথা। গ্রামদেশে তো ১০/১২/১৪ ঘণ্টা লোডশেডিং হয়। এত লোডশেডিং হলে বিদ্যুৎ খাতের এত হাজার হাজার কোটি টাকা গেল কোথায়?’

মঙ্গলবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি কার্যালয়ে এক আলোচনা সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য এই প্রশ্ন তুলেন।

বাংলাদেশ ইয়ুথ ফোরামের উদ্যোগে ‘তারেক রহমান : গণতন্ত্রের অগ্রপথিক ছবির অ্যালবাম’ শীর্ষক গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন উপলক্ষে এই আলোচনা সভা হয়।
খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘আপনারা এখনই বলেন, আগামী বছর দুর্ভিক্ষ হবে, হারিকেন নিয়ে প্রস্তুত থাকতে বলেন জনগণকে। তাহলে এত টাকা আপনারা বিদেশে পাচার করেছেন? তাহলে নিজেদেরকে ব্যর্থ বলে নিজেরাই সাক্ষী দিচ্ছেন?’

‘জনগণের কথা হচ্ছে, এনাফ ইজ এনাফ। আপনারা দয়া করে বিদায় হোন। আপনারা কিছুই পারবেন না। জনগণের দাবি- এই সরকারের অনতিবিলম্বে বিদায়,’ বলেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, ‘এই সরকারকে বিদায় না করতে পারলে দেশে গণতান্ত্রিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনা সম্ভব হবে না, এই সরকারকে বিদায় করতে না পারলে নির্বাচনকালীন নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার প্রতিষ্ঠা হবে না। তা না হলে নির্বাচন এদেশে সুষ্ঠু হবে না, নিরপেক্ষ হবে না।’

‘অতীতেও এই সরকারের অধীনে নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি। সম্প্রতি গাইবান্ধাও উপনির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি। এটা আজকে প্রমাণিত যে, এই সরকারের অধীনে নির্বাচন হয় না, ডাকাতি হয়। সে কারণে আমরা বলেছি যে এই সরকারের অধীনে বিএনপি নির্বাচনে যাবে না, নির্বাচনও হবে না।’

খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘এই সরকারকে না হটালে আমাদের দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া মুক্ত হবে না। আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হবে না।’

‘সেজন্য আজ দেখবেন জনগণ জেগে উঠেছে। আমাদের দায়িত্ব জনগণকে সংগঠিত করে এই সরকারকে হটানো, দেশে একটি নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার প্রতিষ্ঠা এবং সুষ্ঠু ভোটে এদেশের জনগণের তাদের নিজেদের হাতে ভোটের ব্যবস্থা করাই একমাত্র আমাদের টার্গেট। সেই লক্ষ্যে আসুন আমরা সকলে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করি।’

সংগঠনের সভাপতি মুহাম্মদ সাইদুর রহমানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মিডিয়া সেলের আহ্বায়ক জহির উদ্দিন স্বপন, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, আনোয়ার হোসেন বুলু, স্বেচ্ছাসেবক দলের নেত্রী বীথিকা বিনতে হোসাইন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.